free invisible hit counter

NTRCA Latest Notice Board

NTRCA Latest Notice published. NTRCA Latest Notice Board. Notice related all information found my website. NTRCA last notice. NTRCA job related notice. NTRCA notice. Job Notice for NTRCA. www.ntrca.gov.bd,Non-government Teachers Job Apply System Published,NTRCA Institute Registration & Requisition,NTRCA Published 15 Thousand Teacher Vacancies

NTRCA Teachers is Last Demand Inconvenience,15 Th Teacher’s Registration MCQ 2020 Result,15Th Teacher’s Registration Exam 2018 Result.www.ntrca.gov.bd,Non-government Teachers Job Apply System Published,NTRCA Institute Registration & Requisition,NTRCA Published 15 Thousand Teacher Vacancies,NTRCA Teachers is Last Demand Inconvenience,15 Th Teacher’s Registration MCQ 2018 Result,15 Th Teacher’s Registration Exam 2018 Result. 15Th Teacher’s Registration Exam Result

15th Teachers Registration and Certification Exam Suspended Related Notice,Teachers Registration and Certification Exam Suspended Related Notice,Non-government Teachers Registration and Certification Related Notice,Non-government Teachers Registration and Certification,Non-government Teachers Registration,Teachers Registration and Certification

Non-government Teachers Registration,bd Non-government Teachers Registration,www.bd Non-government Teachers Registration,15th Teachers Registration and Certification Suspended Related Notice,Teachers Registration and Certification Exam Suspended Related Notice,16th ntrca result,NTRCA,ntrca 16th result. Result & List Online Apply Link Below:

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এই লক্ষে শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়া শেষ পর্যায়ে। বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) পর্যন্ত শূন্যপদের তথ্য দিতে পেরেছেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। ইতোমধ্যে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ৫৭ হাজার শূন্যপদের তথ্য এনটিআরসিএতে পৌঁছেছে বলে দৈনিক শিক্ষাডটকমকে নিশ্চিত করেছেন কর্মকর্তারা। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে এনটিআরসিএর এক কর্মকর্তা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত প্রায় ৫৭ হাজার শূন্যপদের তথ্য পৌঁছেছে। আশা করছি প্রায় ৬০ হাজার শূন্যপদের তথ্য পাওয়া যাবে।

তবে, বেশকিছু প্রতিষ্ঠান থেকে শূন্যপদের ভুল তথ্য দিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাই, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বা ডিইওদের শূন্যপদের তথ্য যাচাই ও সংশোধনের দায়িত্ব দিয়েছে এনটিআরসিএ। তাই, ৩১ জানুয়ারি থেকে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শূন্যপদের তথ্য যাচাই ও সংশোধন করতে পারবেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা। আর যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান শূন্যপদে তথ্য দিতে ভুল করেছেন, তারা জেলা শিক্ষা অফিসে যোগাযোগ করে এসব ভুল সংশোধন করতে পারবেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে এনটিআরসিএর ওই কর্মকর্তা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন,  প্রতিষ্ঠান থেকে ই-রিকুইজিশনে চাওয়া শূন্যপদের তথ্য ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দে জারি করা এমপিও নীতিমালা বা জনবল কাঠামো অনুযায়ী কম-বেশি হলে তা সংশোধন করার ক্ষমতা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের দেয়া হয়েছে। যেসব প্রতিষ্ঠান শূন্যপদে তথ্য দিতে ভুল করেছে তারা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে যেসব ভুল সংশোধন করতে পারবেন। জেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শূন্যপদের তথ্য যাচাই করবেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। তথ্য সঠিক থাকে তা সঠিক বলে সাবমিট দিবেন তিনি। আর তথ্যে কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধন করে এনটিআরসিএতে সাবমিট করবেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা।

তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে আরও জানান, ৩১ জানুয়ারি থেকে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শূন্যপদের তথ্য যাচাই ও এডিট করতে পারবেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা। মিউজিক ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে নির্ধারিত ওয়েবসাইটে লগিন করে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শূন্যপদে তথ্য যাচাই ও সংশোধন করতে পারবেন। এই সময়ের মধ্যে শূন্যপদের তথ্য যাচাই ও সংশোধনের কাজ অবশ্যই শেষ করতে হবে। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের যাচাই করা পদগুলো সঠিক বলে বিবেচনা করবে এনটিআরসিএ। সে অনুযায়ী পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে কোনো তথ্য জানা থাকলে এনটিআরসিএর অফিসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। 

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলে শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ করে এনটিআরসিএ। বাছাই করা প্রার্থীদের আর কোনও পরীক্ষা দিতে হয় না। ইতোমধ্যে দুইটি চক্রে ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে ও ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলের শিক্ষক নিয়োগে প্রার্থী সুপারিশ করেছে এনটিআরসিএ। সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তৃতীয় চক্রে শিক্ষক নিয়োগ দিতে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ লক্ষ্যে শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহ শুরু হয়েছে। গত ১৪ জানুয়ারি বিকেল থেকে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা শূন্যপদের তথ্য দিতে পারছেন। 

এনটিআরসিএর এক কর্মকর্তা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, শিক্ষক নিয়োগের শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের ই-রেজিস্ট্রেশন সফলভাবে শেষ হয়েছে। গত ১৪ জানুয়ারি থেকে ই-রিকুইজিশন বা শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত এ প্রক্রিয়া চলার কথা থাকলেও সে সময় বাড়িয়েছে এনটিআরসিএ। ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত  ই-রিকুইজিশন বা শূন্যপদের তথ্য দিতে পারবে প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে, ই রিকুইজিশনের সময় আর বাড়ানো হবে না।

তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে আরও বলেন, এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে (http://ngi.teletalk.com.bd বা www.ntrca.gov.bd) প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিজস্ব ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে শূন্যপদের চাহিদা দিতে হবে। আর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা স্ব স্ব ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে শূন্যপদের তথ্য যাচাই করে প্রত্যয়ন বা স্বাক্ষর দিবেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের প্রত্যয়ন না বা স্বাক্ষর ছাড়া শূন্যপদের তথ্য আমলে নেবে না এনটিআরসিএ।

গত শিক্ষক নিয়োগে প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে শূন্যপদের ভুল তথ্য দেয়ায় ভোগান্তিতে পড়তে হয় প্রার্থীদের। এ জটিলতা নিরসনে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে দৈনিক শিক্ষাডটকমকে নিশ্চিত করেছে এনটিআরসিএ।  শূন্যপদের ভুল তথ্যের ভোগান্তি এড়াতে এবার ই-রিকুইজিশন যাচাই বাছাইয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা। এদিকে এনটিআরসিএর একটি সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, শূন্যপদের তথ্য যাচাই বাছাইয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের সময় দেয়া হবে। এ সময়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা নিজ নিজ ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো ভুল তথ্য পাঠালে তা সংশোধন করতে পারবেন।     

শূন্যপদের ভুল তথ্য দিলে প্রতিষ্ঠান প্রধান ও কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান এনটিআরসিএর কর্মকর্তারা। তারা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, কোনো প্রতিষ্ঠান শূন্যপদের ভুল তথ্য দিলে সে পদে সুপারিশ করা প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে হবে। প্যাটার্নের অতিরিক্ত শূন্যপদের চাহিদা দিলে শিক্ষকের শতভাগ বেতন প্রতিষ্ঠান থেকে দিতে হবে। তা না হলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের এমপিও বন্ধ করা হবে। আর কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এমপিও নীতিমালায়ও এমনটি বলা আছে।

NTRCA Latest Notice Board

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *